প্রধান সূচি

নাজিরপুরের কৃতি সন্তান শ ম রেজাউল করিম পুনরায় বার কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত

Rezaul-Karim

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার কৃতি সন্তান, সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজিীবী শ ম রেজাউল করিম পুনরায় বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

বার কাউন্সিলের সূত্র অনুসারে, সারাদেশের ৭৮টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ শেষে রাতেই আলাদা করে কেন্দ্রগুলোতে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। সেই তথ্য অনুসারে নির্বাচিত ১৪টি পদের মধ্যে ১২টি পদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে, বিএনপি মাত্র দুটি পদে জয়লাভ করেছে।

বার কাউন্সিলের সচিব রফিকুল ইসলাম জানান, সারাদেশে ভোট গ্রহণ গতকাল সোমবার (১৪ মে) শেষ হয়েছে। কেন্দ্র থেকে রেজাল্ট ঘোষণা শেষে রেজাল্ট শিটগুলো বার কাউন্সিলে আসতে শুরু করেছে। তবে এখনও অনেক কেন্দ্রের রেজাল্ট শিট আমরা হাতে পাইনি। সবগুলো রেজাল্ট শিট হাতে পেলে তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের কাছে পাঠানো হবে। এরপর তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে বার কাউন্সিল নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করবেন।

তবে বার কাউন্সিল সূত্র বলছে, এবারের নির্বাচনে সাধারণ ক্যাটাগরিতে সাতটি পদের মধ্যে আওয়ামীপন্থী প্যানেল থেকে ছয়জন নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচিতরা হলেন— বার কাউন্সিলের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুল বাসেত মজুমদার, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুয়ায়ুন,মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম (জেড আই) খান পান্না, আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট শ. ম. রেজাউল করিম, অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান বাদল।

তবে সাধারণ ক্যাটাগরিতে বিএনপিপন্থী প্যানেল থেকে শুধু সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়া, গ্রুপভিত্তিক সাতটি পদের মধ্যেও আওয়ামীপন্থীরা ছয়টি পদে জয়লাভ করেছেন। নির্বাচিতরা হলেন— (গ্রুপ এ) অ্যাডভোকেট কাজী নজিবুল্লাহ হিরু,(গ্রুপ বি) মো. কবির উদ্দিন ভূঁইয়া,(গ্রুপ ডি) এ. এফ. মো. রুহুল আনাম চৌধুরী, (গ্রুপ ই) পারভেজ আলম খান, (গ্রুপ এফ) মো. ইয়াহিয়া এবং (গ্রুপ জি) রেজাউল করিম মন্টু।

তবে শুধু (গ্রুপ সি)-এ বিএনপি সমর্থিত প্যানেল থেকে অ্যাডভোকেট মো. দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী নির্বাচিত হয়েছেন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক শ ম রেজাউল করিম। টেলিভিশন টক শোতে পরিচিত মুখ। সমসাময়িক যে কোনো ঘটনায় টিভির পর্দায় নিয়মিত দেখা যায় তাকে। যেকোনো ইস্যুতে আওয়ামী লীগের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করে যাচ্ছেন।

আইনজীবীদের মধ্যেও বেশ জনপ্রিয়। বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন। দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগেও তিনি আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য নির্বাচিত হয়ে বার কাউন্সিলের অর্থ কমিটির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন।

পেশাজীবনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ মামলায় আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছেন। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা ও জেলহত্যার মতো গুরুত্বপূর্ণ মামলার আইনজীবী ছিলেন তিনি। ১/১১ এর দুর্যোগকালীন সময়ে তিনি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইনজীবী হিসেবে আইনি সহায়তা দিয়েছেন।িআওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, শেখ সেলিমের মতো রাজনীতিবিদদের আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছেন।

ছাত্র জীবন থেকেই তিনি রাজনীতির সাথে জড়িত। ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগ করেছেন। ১৯৮০ সালে খুলনা দৌলতপুর সরকারি কলেজের ছাত্র সংসদের ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি), ১৯৮১ সালে খুলনা কৃষি কলেজের সাধারণ সম্পাদক (জিএস) ছিলেন। ১৯৮৯ সালে নাজিরপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগ করে আসা শ ম রেজাউল করিম জাতীয় রাজনীতিতে ভূমিকা রাখতে চান। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পিরোজপুর-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নির্বাচন করতে আগ্রহী। অতীত কার্যক্রম পর্যালোচনা করে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা তাকে মনোনয়ন দিবেন বলেও আশা করেন তিনি।