প্রধান সূচি

কাউখালীতে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে হত্যার অভিযোগ

Failure-to-rape-in-Kaukhali

পিরোজপুরের কাউখালীতে মুক্তা আক্তার নামের পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীর লাশ স্থানীয় একটি খাল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযোগ ওঠেছে, ওই এলাকার পারভেজ মহাজন নামের এক বখাটে ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে ওই ছাত্রীকে হত্যা করে খালে ফেলে দেয়।

৩০ এপ্রিল, সোমবার রাত ১০টায় স্থানীয় একটি খাল থেকে মুক্তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত মুক্তা স্থানীয় দাশেরকাঠী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে এবারেরে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করার কথা ছিল। ঘটনায় বাদী হয়ে নিহতের মা একটি মামলা দায়ের করেছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, সোমবার দুপরে কাল বৈশাখী ঝড়ের সময় উপজেলার দাশেরকাঠী গ্রামের হিরু মহাজনের বড় ও মেঝ মেয়ে পাশের বাড়িতে আম কুড়াতে যায়। কিছু সময় পর বড় মেয়ে বাড়িতে ফিরে এলেও মেঝ মেয়ে মুক্তা আরও আম কুড়াবার জন্য অপেক্ষা করে। পরে আম কুড়িয়ে ফেরার পথে খালের ব্রিজের কাছে পৌঁছালে একই গ্রামের ফোরকান মহাজনের ছেলে পারভেজ মহাজন (৪০) মুক্তাকে নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। পরবর্তী সময়ে মুক্তাকে ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে এবং খালে ফেলে দেয়।

পরে মুক্তা বাড়িতে না ফিরলে রাত নয়টার দিকে তার বাবা-মা থানায় অভিযোগ করে। ঘটনার এক ঘন্টা পরেই খাল থেকে মুক্তার লাশ উদ্ধার করে পুুুলিশ। ১ মে মঙ্গলবার সকালে লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য পিরোজপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে মুক্তা আক্তারের মা শাহিনুর বেগম শানু বাদী হয়ে পারভেজ মহাজন ও সোহেল মহাজন নামের অপর একজনকে আসামি করে কাউখালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ বিষয়ে কাউখালী থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি) কামরুজ্জামান বলেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে আসামি পারভেজ ও সোহেল এর আগে বিভিন্ন সময় মুক্তা ও তার বড় বোনকে বিভিন্ন সময় উত্যক্ত করত ও কু প্রস্তাব দিত। সে অনুমানের ওপর ভিত্তি করে সোহেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ময়না তদন্তের পর বোঝা বাকিটা বোঝা যাবে।’