প্রধান সূচি

বরিশালে নান্দনিক স্থাপত্যের অন্যতম নিদর্শন হতে যাচ্ছে মল্লিক টাওয়ার

mallik-tower

কীর্তনখোলার তীরে অবস্থিত মায়াময় শহর বরিশাল। আদর করে এই শহরকে প্রাচ্যের ভেনিস বলেও ডাকা হয়। দেশের অন্যান্য বিভাগীয় শহরগুলোর মত অত বড় না হলেও বরিশাল শহর নান্দনিকতায় যেনো মোটেও পিছিয়ে নেই। আর এই বরিশাল শহরের নান্দনিকতায় নতুন পালক যোগ করতে শহরের প্রাণকেন্দ্র বাংলাবাজারে তৈরি হচ্ছে সুউচ্চ বানিজ্যিক ভবন মল্লিক টাওয়ার।

অসাধারণ নির্মাণশৈলি ও আধুনিকতার সমন্বয়ে গড়ে উঠছে ভবনটি। রয়েছে অত্যাধুনিক অটোলিফট, জেনারেটর, কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ইন্টারকম সুবিধা। এছাড়া পুরো ভবনটি সিসি ক্যামেরার আওতাভুক্ত থাকবে। ভূমিকম্প সহনীয় পদ্ধতিতে নির্মাণাধীন ভবনটিতে আরো থাকছে অগ্নি নির্বাপক ব্যবস্থা ও বর্জপাত নিরোধক ব্যবস্থা।

১০ তলাবিশিষ্ট মল্লিক টাওয়ারের আন্ডারগ্রাউন্ডে থাকবে গাড়ী পার্কিং, গ্রাউন্ড ফ্লোরে থাকবে শোরুম-দোকান, ২য় তলায় ব্যাংক ও শোরুম, ৩য় হতে ৫ম তলায় অফিস, ৬ষ্ঠ হতে ১০ম তলা পর্যন্ত থাকবে উন্নত ও আধুনিক আবাসিক হোটেল “মল্লিক পার্ক”, ছাদে থাকবে আধুনিক ফুড কোড, বিনোদনের জন্য থাকবে পার্ক, জিম,ও সুইমিং পুল।

মোটকথা রুচিশীল গ্রাহকদের চাহিদা মেটাতে শতভাগ সক্ষম হবে মল্লিক টাওয়ার এমনটা আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

মল্লিক টাওয়ার এর অন্যতম কর্ণধার বায়েছা মল্লিক বলেন, সাধারনত এমন স্থাপনা রাজধানী ঢাকাতেই চোখে পড়ে। কিন্ত আমাদের জন্মস্থান বরিশাল, তাই মনে প্রাণে বিশ্বাস করি বরিশাল শহরকে আমাদের কিছু দেয়ার আছে। তাই বরিশাল শহরকে আধুনিকতার ছোয়া দিতেই এমন স্থাপনা তৈরির উদ্যোগ নিলাম। তিনি আরো জানান, জনতা ব্যাংকের অর্থায়নে নির্মিত “মল্লিক টাওয়ার” সম্পূর্ণরুপে বানিজ্যিক প্রক্রিয়া শুরু করলে এ অঞ্চলের অসংখ্য বেকারের কর্মসংস্থান তৈরি হবে। এতে কিছুটা হলেও বেকারত্ব ঘুছবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন, এই উদ্যোক্তা। ইতিমধ্যে মল্লিক টাওয়ারের প্রাথমিক বানিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করেছে। বুকিংয়ের জন্য বরাদ্দ চলছে ভবনটি। আপনিও হতে পারেন একজন গর্বিত অংশীদার। বুকিংয়ের জন্য যোগাযোগ : মোবাইল- ০১৭১৫৫২২৮৪২, ০১৯১৫৫২২৮৪২ ই-মেইল: [email protected],