প্রধান সূচি

পিরোজপুরে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ২ মাদক ব্যবসায়ী নিহত

Gunfight

পিরোজপুরে পুলিশের সঙ্গে আলাদা বন্দুকযুদ্ধে মো. ওহিদুজ্জামান (৩৭) ও মিজানুর রহমান সরদার (৩৫) নামের দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। রোববার দিবাগত রাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে তাঁরা মারা যান। নিহত ওহিদুজ্জামান নেছারাবাদ উপজেলার কৌড়িখাড়া গ্রামের মৃত আবদুর রহমানের ছেলে। আর নিহত মিজানুর রহমান সরদার মঠবাড়িয়া উপজেলার খায়ের ঘটিচোরা গ্রামের লাল মিয়া সরদারের ছেলে। বন্দুকযুদ্ধে মঠবাড়িয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাজহারুল আমিন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। আহত হয়েছেন সাত পুলিশ সদস্য।

পিরোজপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক এ কে এম মিজানুল হক জানান, রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে গোয়েন্দা পুলিশ পিরোজপুর পৌরসভার কৃষ্ণপুর এলাকা থেকে ওহিদুজ্জামানকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পর ওহিদুজ্জামান পুলিশকে জানান, তাঁর কাছে অস্ত্র ও মাদক রয়েছে। এরপর রাতে পুলিশ ওহিদুজ্জামানকে নিয়ে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারে বের হয়। রাত পৌনে একটার দিকে পিরোজপুর সদর উপজেলার টোনা বেইলি সেতু এলাকায় পৌছলে ওহিদুজ্জামানের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি করে এবং ওহিদুজ্জামানকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। জবাবে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এ সময় দুই পক্ষের গোলাগুলিতে ওহিদুজ্জামান গুলিবিদ্ধ হন। তখন পিরোজপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) এ বি আল আমিন ও কনস্টেবল মোস্তাফিজুর রহমান গুলিবিদ্ধ হন। পিরোজপুর সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক ওহিদুজ্জামানকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, পাঁচটি বন্দুকের গুলি, তিনটি কার্তুজ, ধারালো দা ও ১৭৫ পিচ ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করে পুলিশ।

ডিবি পরিদর্শক এ কে এম মিজানুল হক জানান, ওহিদুজ্জামানের বিরুদ্ধে আটটি মাদক মামলা রয়েছে। রোববার পিরোজপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালত একটি মাদক মামলায় তাঁকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেন।

আরেকটি বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন মিজানুর রহমান। মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) গোলাম ছরোয়ার জানান, রোববার রাতে মঠবাড়িয়া উপজেলার বড়মাছুয়া গ্রামের হাওলাদার বাড়ি এলাকায় ডাকাতির প্রস্তুতির খবর পেয়ে থানা-পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যায়। রাত পৌনে দুইটার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছার পর ডাকাতেরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। দুই পক্ষের গোলাগুলিতে মিজানুর রহমান গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে নিহত হন। এ সময় মঠবাড়িয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাজহারুল আমিন, উপপরিদর্শক নজরুল ইসলাম, তসলিমুর রহমান ও নূর আমিন, এএসআই ইয়ার আলী ও আবুল হাসান আহত হন। মাজহারুল আমিনের বাঁ হাতে গুলি লাগে।

আহত পুলিশ সদস্যদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দেড় কেজি গাঁজা, ৫৫ পিচ ইয়াবা বড়ি ও চারটি ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে। মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে ডাকাতি ও মাদকের ছয়টি মামলা রয়েছে।