প্রধান সূচি

নাজিরপুরে পুলিশ পরিবারের অর্ধকোটি টাকার সম্পত্তি ভূমিদস্যুদের দখলে

nazirpur-pic

পিরোজপুরের নাজিরপুরে এক পুলিশ পরিবারের অর্ধকোটি টাকার সম্পত্তি অবৈধভাবে ভোগদখল করছে একটি ভূমিদস্যু চক্র। ঢাকা মহানগর পুলিশে কর্মরত ওই পরিবারের এক সদস্য এ অবৈধ দখলের প্রতিবাদসহ পৈতৃক সম্পত্তি উদ্ধারের জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের দ্বারস্থ হলে ভূমিদস্যু চক্রটি ওই পুলিশ সদস্যকে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে। এ ঘটনায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে তিনি নাজিরপুর থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন।

অভিযোগে জানা যায়, ঢাকা মহানগর পুলিশের শাহজাহানপুর থানায় কর্মরত পুলিশ সদস্য উজ্জল কুমার মন্ডলের পিতা মৃত বীরেন মন্ডল উপজেলার দীর্ঘা ইউনিয়নের ৩৭নং বেলুয়া মৌজার ৩৩৯নং খতিয়ানের ১শ’ ২৩ শতাংশ সম্পত্তির এসএ রের্কডীয় মালিক। ওই সম্পত্তি থেকে তিনি ৫৭ শতাংশ সম্পত্তি স্থানীয় নিশিকান্ত মজুমদারের ছেলে হরেন্দ্রনাথ মজুমদার গংদের নিকট সাব-কবলা মুলে বিক্রি করে। বাকী ৬৬ শতাংশ সম্পত্তি বিএস জরিপে এসএ রের্কডীয় মালিক বীরেন মন্ডলের ওয়ারিশদের নামে রের্কডভুক্ত হয়। কিন্তু হরেন্দ্রনাথ মজুমদার গংরা ৫৭ শতাংশ সম্পত্তি ক্রয় করে অবশিষ্ট ৬৬ শতাংশ সম্পত্তির অবৈধভাবে জোর পূর্বক ভোগদখল করে আসছে। সম্প্রতি মৃত বীরেন মন্ডলের ছেলে পুলিশ সদস্য উজ্জল মন্ডল তার পিতার সম্পত্তি অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে উদ্ধারের উদ্যোগ নিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের দ্বারস্থ হলে অবৈধ দখলদার হরেন্দ্রনাথ মজুমদার তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে পুলিশ সদস্য উজ্জল মন্ডলকে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে। এ ঘটনায় তিনি জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে নাজিরপুর থানায় সাধারণ ডায়রী করেছেন।

ভুক্তভোগী উজ্জল মন্ডল জানান, তার পিতার মৃত্যুর পরে তিনি পুলিশে চাকুরীর কারণে সঠিকভাবে সম্পত্তির খোঁজ-খবর রাখতে না পারার সুযোগে তাদের প্রায় অর্ধকোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি অবৈধভাবে জোর পূর্বক ভোগদখল করে আসছে হরেন্দ্রনাথ মজুমদার ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী। তিনি কয়েক দফা ছুটিতে এসে সম্পত্তি উদ্ধারের চেষ্টা করলে তারা তাকে হত্যার হুমকিসহ চাকুরীর ক্ষতি করার হুমকি দিয়ে আসছে।

ঘটনার বিষয়ে জানতে হরেন্দ্রনাথ মজুমদারের মুঠোফোনে ফোন করা হলে তিনি সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ফোন কেটে দিয়ে তা বন্ধ করে রাখেন।

সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান আশুতোষ বেপারী বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। তবে কোন পক্ষই আমার কাছে অভিযোগ করেনি।

নাজিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান সাধারণ ডায়েরীর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বিষয়টি আদালতের অনুমতি ক্রমে তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।